This Is What Happens If You Blow On Your Thumb! (Plus 9 More Body Hacks)

​“Body Hacks” are tips and tricks to make your life easier. They’re easy fixes for common problems. Here are the top 10 body hacks that give the power back to you.
1. NERVOUS? HEART RACING? SLOW YOUR HEART RATE DOWN BY BLOWING ON YOUR THUMB.
Slowly blow air over the pad of your thumb. It regulates breathing and controls the vagus nerve, slowing down your heart rate and eliminating the nervousness.

2. RELIEVE A MIGRAINE INSTANTLY
The next time you are about to reach for some pills to get rid of your headache, use your thumb and forefinger and pinch down on the muscle on the web of your hand (thumb on the back of your hand and forefinger underneath) and press for 2 minutes. Repeat. Most headaches and migraines will ease after just 4 minutes.

3. RIGHT EAR IS ‘BETTER FOR HEARING’
If you have trouble hearing someone at a party or on the phone, use your right ear. It’s better at picking up rapid speech. But, the left is better at picking up music tones.

4. IF YOU ATE A BIG MEAL AND YOU’RE FEELING FULL AS YOU GO TO SLEEP, LAY ON YOUR LEFT SIDE.

Sleeping on the left side reduces the acid reflux in the body. It keeps your stomach lower than your oesophagus which will help prevent stomach acid from sliding up your throat. When you sleep on your right, the stomach is higher than the oesophagus allowing food and stomach acid to slide up your throat.

5. ITCH IN THROAT?

If you’ve got an itch in your throat, scratch your ear. When the nerves in the ear get stimulated, they create a reflex in the throat that causes a muscle spasm, which cures the itch.

6. BRAIN FREEZE FROM ICE CREAM?
While eating ice cream too quickly, sometimes you can’t help getting that painful sensation. It’s called Brain freeze or Ice-cream headache. It happens because the nerves in the roof of your mouth get extremely cold, which makes the brain decide that the whole body needs to be cooled down. In response, you become overheated, and consequently get a headache. You can prevent brain freeze by pressing your tongue flat against the roof of your mouth, covering as much surface area as possible. This can keep those nerves from getting too cold, which will keep your brain from thinking its freezing as well.

7. WHAT TO DO IF YOUR HANDS FALL ASLEEP
If your hand falls asleep, rock your head from side to side. That’ll wake your hand or arm up in less than a minute. Your hand falls asleep because of the nerves in your neck compressing so loosening your neck is the cure. If your foot falls asleep, that’s governed by nerves lower in the body, so you need to stand up and walk around.

8. GOT THE HICCUPS?
Plug your ears with your fingers and drink a glass of water through a straw. No one really knows why this works, but it’s kind of like you are ‘swallowing down’ your hiccup.

9. SUPPRESS THE URGE TO GO TO THE BATHROOM

If you scratch or rub the back of your calf for a few moments, really vigorously, you may interrupt the message from your bladder to your brain just long enough for you to make it to the toilet.

10. RUBBING ICE ON THE BACK OF YOUR HAND
You can stop a toothache by rubbing ice on the back of your hand. The nerve pathways there stimulate a part of the brain that blocks pain signals from your mouth. 

স্ট্রোক থেকে বাঁচার তৎক্ষণাৎ উপায়  ( Needful Action To Be Taken As First Aid After Stroke )

​চীনের অধ্যাপকরা বলছেন যে কারো স্ট্রোক হচ্ছে যদি এমন দেখেন তাহলে আপনাকে নিম্নলিখিত পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে।

যখন কেউ স্ট্রোকে আক্রান্ত হয় তার মস্তিষ্ক কোষ ধীরে ধীরে প্রসারিত হয়।মানুষের ফার্স্ট এইড এবং বিশ্রামের প্রয়োজন হয়।

যদি দেখেন স্ট্রোকে আক্রান্ত ব্যক্তিকে সরানো যাবে না কারন মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ বিস্ফোরিত হতে পারে, এটা ভাল হবে যদি আপনার বাড়ীতে পিচকারি সুই থাকে, অথবা সেলাই সুই থাকলেও চলবে ,

1…….  আপনি কয়েক সেকেন্ডের জন্য আগুনের শিখার উপরে সুচটিকে গরম করে নেবেন যাতে করে জীবাণুমুক্ত হয় এবং তারপর রোগীর হাতের 10 আঙ্গুলের ডগার নরম অংশে ছোট ক্ষত করতে এটি ব্যবহার করুন।এমনভাবে করুন যাতে প্রতিটি আঙুল থেকে রক্তপাত হয়, কোন অভিজ্ঞতা বা পূর্ববর্তী জ্ঞানের প্রয়োজন হবে না । কেবলমাত্র নিশ্চিন্ত করুন যে আঙ্গুল থেকে যথেষ্ট পরিমাণে রক্তপাত হচ্ছে কি না।

এবার 10 আঙ্গুলের রক্তপাত চলাকালীন, কয়েক মিনিটের জন্য অপেক্ষা করুন দেখবেন ধীরে ধীরে রোগী সুস্থ হয়ে উঠছে।

2…….. যদি আক্রান্ত ব্যক্তির মুখ বিকৃত হয় তাহলে তার কানে ম্যাসেজ করুন। এমনভাবে তার কান ম্যাসেজ করুন যাতে ম্যাসেজের ফলে তার কান লাল হয়ে যায় এবং এর অর্থ হচ্ছে কানে রক্ত পৌঁছেছে।তারপর প্রতিটি কান থেকে দুইফোঁটা রক্ত পড়ার জন্য প্রতিটি কানের নরম অংশে সুচ ফুটান।কয়েক মিনিট অপেক্ষা করুন দেখবেন মুখ আর বিকৃত হবে না।আরও অন্যান্য উপসর্গ দেখা যায়। যতক্ষণ না রোগী মোটামুটি স্বাভাবিক হচ্ছে অপেক্ষা করুন। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করেই যথাসম্ভব তাড়াতাড়ি হাসপাতালে ভর্তি করান।

জীবন বাঁচাতে রক্তক্ষয় পদ্ধতি চীনে প্রথাগত ভাবে চিকিৎসার অংশ হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে। এবং এই পদ্ধতির ব্যবহারিক প্রয়োগ, 100% কার্যকরী প্রমাণিত হয়েছে।

(Consult Doctor for Detail Information)

মোদি নোটে কথা বলে 

​দৈনিক সংবাদ ।

পত্রিকা টি আমার বাবার বন্ধুর মতো। ছোট বেলায় যখন স্কুল ছুটির পর বাবার দোকানে যেতাম, দেখতাম চশমা পরে বাবা দৈনিক সংবাদ পড়ছেন। অনেক ভরসা আছে আমাদের সবার ই এই পত্রিকা টির উপর।

উত্তর পূর্ব ভারতে অনেক সম্মানের সাথে, দীর্ঘদিন ধরে নিরপেক্ষ ভাবে সত্যি খবর মানুষের কাছে পৌঁছে দিচ্ছেএই পত্রিকা।

” ঘরে বাইরে ” নামক ২ নম্বর পাতায় নতুন অনেক জানা অজানা খবর থাকে, যদিও বেশিরভাগ এ জানা ইন্টারনেট এর দয়ায়।

যাই হোক,

” কেয়া বাত… নতুন এপে নরেন্দ্র মোদির নোট বাতিলের বক্তৃতা ” নামের শিরোনাম টি নজর টানলো। পড়লাম। ফালতু একটা বেপারকে এভাবে বাড়িয়ে লেখার মানে টা এখনো খুঁজছি।
App এর সত্যতা যাঁচাই করা খুব সোজা। যারা মোটামোটি ভাবেও android ফোন ব্যবহার করতে জানে, তারা একবার দেখলেই বলতে পারে কোন app কাজের আর কোনটা অকাজের।

RedMangoApps নামক একটা App Developer এর বানানো app এটা।

Ads এ ভরা, দেখলেই বোঝা যায় মাল’টা নকল।

লেখা আছে শুধু নতুন ২০০০ এবং ৫০০ টাকার নোট স্ক্যান করলেই নাকি মোদি জি বক্তৃতা দেবেন। app টা install করার পর, যেকোনো নোট scan করলেই, মোদি বক্তৃতা দিতে শুরু করেন। পুরোনো ১০০ টাকা, ১০ টাকা দিয়ে আমি চেক করেছি। নেট এর স্পীড তা একটু ভালো থাকলেই রেকর্ড এবং প্রোগ্রাম করা মোদির নোট বাতিলের ভাষণ চলতে শুরু করে। শুধু মোবাইল এর ক্যামেরা কে কাজে লাগিয়ে বানানো এই app. এরকম  app অনেক আছে, like “transparent wallpaper”.

মোদ্দা কথা হলো, নতুন নোট এর নকল / আসল সত্যতা যাঁচাই এর মতো ক্ষমতা এই app এর নেই।

শুধু শুধু পাবলিসিটি পেল app টা দৈনিক সংবাদ এর সৌজন্যে।

আমিও নিয়মিত পাঠক। তাই সত্য খবর টাই পড়তে চাই আরকি, তেমন বিশেষ কিছু না।

Vicky “Raghav” Kaushal

​He made an impressive debut as Deepak (a boy from banaras) in Masaan and his role as a man on a self-discovery journey in Zubaan cemented his standing as an able actor.
In his three-films old career, actor Vicky Kaushal is already being touted as the new poster-boy of independent cinema.

Actors around the world have to wait for years to walk the red carpet at the Cannes Film Festival. But not Vicky Kaushal. The 28-year-old actor just can’t shake off the Cannes connection. In a four-year career, he’s already been there twice.
The first movie he worked on as an assistant director (AD) — Gangs of Wasseypur — premiered at Cannes Directors’ Fortnight in 2012. Then Came #Masaan, & Vicky’s transformation as Deepak was really bright.
Bollywood’s award-winning action director Sham Kaushal’s son, Vicky, was born in a chawl in Malad. Although his father was working on multiple films, he doesn’t remember visiting the sets often. He followed his dream to pursue an Engineering Degree, and he did it.
Like most engineering students, Kaushal (a student of Rajiv Gandhi Institute of Technology, Versova) was kicked about the industrial visit, popularly known as the IV. The IV gives students an idea of the kind of job they will do for the rest of their lives. Kaushal got a reality check instead. I think he was f***d up seeing people searching the world behind the computer screen.

Kaushal graduated as an electronics and telecommunications engineer in 2009. He had job offers but as he aspired to become an actor, he got involved with theatre. Gradually an Actor was in making to burst out as a Troubling Cop #Raghav with Intense Outer shell.

Anurag Kashyap hit the Master Stroke choosing Vicky as Raghav.

Forget about Fawad Khan, Ranbir Kapoor, See Vicky in Raman Raghav 2.0, Vicky proved himself as the Next Angry Young Man of B. Town.

A long way to go…. though he is already far away in this race from others.

যন্ত্র আমি

উফ ! কতদিন তোমাকে দেখিনি !!

দেখতেও চাইনা এ কথা মিথ্যে নয় ।

…আসলে জীবন বলে সত্যি কিছু নেই,

জীবন জীবিত থাকার অভিনয় ।।

বাংলা ব্যান্ড আর কলেজ ফেস্ট থেকে কঠিন অংক টেস্ট….একটা সময় এই গানগুলো প্রচুর শুনতাম। #রূপম #ফসিলস ই ছিল যা দিয়ে আমি নিজের মনের আওয়াজ নিজের কান অব্দি পৌঁছাতাম। সেদিন মানুষ ছিলাম, তারপর #রূপম #ফসিলস #ক্যাকটাস #মাইলস…. সবাইকে প্রায় হঠাৎ ই বিদায় দিলাম। গান শোনা যেন হঠাৎ ই জীবন থেকে হারিয়ে গেল। জানতাম অভ্যেস পাল্টাতে ২১ দিন সময় লাগে, হয়তো অজান্তেই কত ২১ দিন পার হয়ে গেছে গান না শুনে। ডিগ্রীর বোঁঝা কাঁধে নিয়ে কখন যে দাস হবার জন্য চাকরি দেওয়া দোকান গুলোতে নিজেকে বিক্রি করতে ঘুরতে শুরু করেছি, নিজেই আজ ভুলে গেছি। কিন্তু এই লেখা অব্দি নিজের বাজার দাম বাড়াতে পারলাম না। যাই হোক…

যান্ত্রিক সমাজে আজ নিজেও ধীরে ধীরে যন্ত্র । যেখানে ভাবনায় বাঁচা দায়, কিন্তু, বাস্তবে বাঁচা যায়। বাঁচার লড়াই….যন্ত্র হয়ে। আজ,অনেকদিন পর হঠাৎ ‘কেন করলে এরকম’ এর কয়েকটা লাইন শুনে, সেই কলেজ এর দিন গুলো তে চলে গেল মনটা। সত্যি…. ফিরে পাওয়া যায়না কোনো কিছুই। মুহূর্তেই বাঁচি আমরা, মুহূর্তেই জীবন।কিন্তু, জীবন আজ নিতান্তই জীবিত থাকার অভিনয়…..

অনুপম

​অনুপম রায়… মানুষটাকে কোনোদিন দেখিনি । কোনোদিন সামনে থেকে গাইতেও শুনিনি। দেখতে চাইওনা, ওঁকে দেখে ফাঁকা ফ্রেমে আটকাতে চাইনা, আর পাঁচটা মানুষের মতো ভাবতে পারবোনা। সে এক সমুদ্র আমার কাছে, যার ঢেউয়ে আমি জীবনের রসদ পাই। ওঁর লেখায়, গানে, আমি নিজেকে খুঁজে পাই। মনে হয় ওঁ যেন আমার মনের কথাগুলোই তো বলছে। আমার ভাষার বড্ড অভাব, তাই হয়তো ও আমার মনের জঞ্জালগুলোকে ভাষা দিচ্ছে।

আমরা দুজনই Engineer, পাঁচ টাকায় দিনের শুরু আর ষোলো টাকায় শেষ টা যেমন বুঝি, তিন টাকা দিয়ে মুক্তি কিনে নিরুদ্দেশ হওয়াটাও তেমনি অনুভব করতে পারি।

কিংবা অভিমানে বলা “আমার জন্য আলো জ্বেলোনা কেও, আমি মানুষের সমুদ্রে গুনেছি ঢেউ, এই স্টেশনের চত্বরে হারিয়ে গেছি, শেষ ট্রেনে ঘরে ফেরবনা“… এত যেন আমিই বলছি।
সারাটাদিন জুড়ে কেও অনাগুনা করলেও, অবুঝের পেন্সিল আজ আর তার ছবি আঁকতে চায়না। আমার সময় ডালে আজ সত্যি পাতা ফুরিয়েছে… এত প্রেম কাছে এসেও এলোনা…।
যেখানে শুরুর কথা বলার আগেই শেষ ছিল, শুধু অভ্যেসে সেখানে মুখ ডুবিয়ে সুখ খুঁজেছি। পাইনি। একবার কেন হাজার বার বলবো আমার কেও নেই। শুধু আছে আমার মনের আবেগি সোহাগ কে ভাষা দেওয়া অনুপম এর গান।

স্পষ্ট ভাবে বলতে চাই, আমাকে আমার মতো থাকতে দাও, আমি নিজেকে নিজের মতো গুছিয়ে নিয়েছি। ইচ্ছে করেই নোংরা জলে হাত ডুবাবো কব্জি থেকে কনুই, পেতেও পারি নতুন কোনো খোঁজ।

বলবোনা বাড়িয়ে দিতে হাত ; আমি আর তোমার আঙুল ধরতে চাইনা….আর আমি তোমার পাশে হাঁটতে চাইনা।… তুমি অন্য কারোর গল্পে নায়িকা, অন্য কারোর সঙ্গে বেঁধো ঘর।

অজস্রবার শুনা একটা গান লিখলাম, কষ্ট হচ্ছে, কিন্তু কষ্টটাকে অনুভব করছি, জীবনকে চিনছি, একা থাকার স্বাদটা চেঁখে দেখছি।…

এই বেশ ভালো আছি…

_____________________________

আমি আজকাল ভালো আছি,

তোকে ছাড়া রাতগুলো আলো – হয়ে আছে

আমি আজকাল ভাল আছি।


পারদের ওঠা নামা আমাকে ভাবিয়ে তোলে না আর

ঝিনুকের রঙ চিনে নিতে শিখে গেছি আমি এবার।


শোন নতজানু হয়ে কেউ বসে নেই কোথাও

ফিরে গেছি সব কিছু ফেলে।

আর একশো বছর আমি বাঁচবই,

পড়ে দেখ,

লেখা আছে স্পষ্ট দেওয়ালে।


এক লাফে Signal পেরোতে পা আঁকড়ে ধরে না,

অজস্র কালবৈশাখী আর আছড়ে পড়ে না।


শোন অভ্যেস বলে কিছু হয় না এ পৃথিবীতে

পালটে ফেলাই বেঁচে থাকা।

আর একশো বছর আমি বাঁচবই,

জেনে রাখ,

হোক না এ পথঘাট ফাঁকা।